বড় কোম্পানীগুলো যেভাবে ইনটারনেটের মালিক হয়ে যাবে

ডাটা চার্জ ছাড়াই ফেসবুক ব্যবহারের সেবা আরম্ভ হয়েছে, কয়েক মাস হল। একটি নির্দিষ্ট অপারেটর এর সংযোগ ব্যবহার করলে এই সেবা উপলভ্য হয়। আমি সেই অপারেটর এর গ্রাহক নই। আমার মতো যারা মোবাইলে ফ্রি ফেসবুক ব্যবহার করেন না, তাদের মোবাইল ফেসবুক বিজ্ঞপ্তিতে ঘুরেফিরে একটা নোটিস আসে এই বলে যে, আমার ফেসবুক বন্ধুদের কারা কারা ডাটা চার্জ ছাড়াই ফেসবুক ব্যবহার করতেছে। সেটা ক্লিক করলে ফেসবুকের পার্টনার অপারেটর সংযোগের বাধ্যবাধকতা সম্পর্কে জানা যায়। ভেবেছিলাম, এই নোটিফিকেশন একসময় আসা বন্ধ হয়ে যাবে; হয়নি। গতকালও এরকম নোটিশ পেলাম।

ডাটা চার্জ ব্যতিরেকে ফেসবুক

ডাটা চার্জ ব্যতিরেকে ফেসবুক

বেশ কয়কবার গুগল করে নিশ্চিত হলাম, ফেসবুক একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান। শেয়ার কিনতে পাওয়া যায়, মানে শেয়ারহোল্ডার রয়েছে, ফি-বছর এদের মুনাফা বুঝিয়ে দিতে হবে।

Screen Shot 2015-09-20 at 10.55.40 AM

তাহলে, এরা কি উপায়ে তাদের সার্ভার-হেন-তেন খরচ মেটাবে? সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে করবে সেই বিশ্বাস উঠে গেছে যখন শুনি দেশে এক অপারেটর হাজার কোটি টাকা রাজস্ব ঘাপলা করেছে। তারপর লক্ষ্য করলাম, ফেসবুক বলেই দিচ্ছে, ডাটা চার্জ লাগবে না। হ্যাঁ ডাটা চার্জ লাগবে না। এটা কিন্তু বলে নাই, আপনি ফেসবুক ব্যবহার করলে আমরা ভিন্ন উপায়ে খরচ পুষিয়ে নিবো। কিংবা খরচ পুষিয়ে বেশ ভালো লাভও করে নিবো – যা কখনোই স্পষ্ট করে বলবে না। বলার বাধ্যবাধকতা নেই।

আমি একজনকে দেখেছি, মোবাইলে শুধু ফেসবুক ব্যবহার করে। তিনি ওই মাগনা ফেসবুক চালাতে পারেন বলেই, ফেসবুক ব্যবহার করেন। মানে তার ফোনটি দখল করে আছে ফেসবুক, ইনটারনেট নয়। তাকে “use case” ধরলে আমি বলতে পারি, এই প্রেক্ষিতে ইন্টারনেটের মালিক একটি বড় কোম্পানী। আমি আশা করবো, আমার দেখা এই একটি উদাহরণ যেনো খুব বেশী বৃদ্ধি না পায়।

আমি ইনটারনেট ডট অর্গ সম্পর্কে কোন আলোচনা করতে পারবো না, সেটির নেপথ্যে আরো বেশি জটিল তথ্য জেনেছি। শুধু এতটুকু বলতে পারি, ইনারনেট ডট অর্গে, আমার প্রয়োজনীয় কিছু সেবা যেমন, ইমেইল বা সেরকম আরও কিছু পাওয়া যায় না।

:: Probhat for macOS :: ম্যাক ওএস এর জন্যে প্রভাত ::

যারা mac OS ব্যবহার করেন, আশা করি তারা এর সফটওয়্যার ইনস্টল পদ্ধতি জানেন। নিচের ছবি দেখলেই বুঝতে পারবেন কি উপায়ে প্রভাত ইনস্টল করতে হবে।
1

তারপর

3

তারপর

2‌‌

তবে সবার আগে ডট ডিএমজি ডাউনলোড করুন এখান থেকে

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ  আশিকুর নুর সাহেব ম্যাক বাতাস খরিদ করেছেন, আমার পাশে বসে আছেন। প্রভাত লেআউট ছাড়া বাংলা টাইপ করেন না। আমার নিকট ম্যাক এর জন্যে প্রভাত ইনসট্লার চাইতেছেন। এমনি এমনি দিয়ে দিবো, একখানা শর্ট ব্লগ লিখে ফেললাম। উনিও এটি পড়েই ইনস্টল করুন। আশা করি, এই ব্লগ শেয়ারও করবেন তিনি।

মরিস না ক্যান?

ভাগ্যের উপর জোর যে কখনো চলেই না
নচ্ছার এমন এক ঋতু যা বদলায়ই না
দুর্ভাগ্য আমার ফিরে ফিরে এসে দেয় ধরা
দরিদ্রতা মোর কখনো লুকায় না হতচ্ছাড়া
সাধ্য কি আমার, নাম কারো মুখে নেবার
আসামী আমি এর ওর এবং সবার
মৃত্যুতে হবেনা জানি আমার মরণ
মারুক যতবার পারে আমায় এই জীবন

Women , Femininity & Techs

I did not write this, Maliha Momtaz Islam wrote and published in her blog. This write up deserve more audience, many person need to read this. I want this to pop in MozillaReps planet, as she is not a Reps until now.

 

Women , Femininity & Techs

I’ve been working as a FSA and Womoz for 6 months now . It seems as if i started yesterday!! I’m still walking the path to achieve the dream i’m chasing after. Don’t know if i can succeed and achieve the ultimate goal of empowering every single mother,daughter and female friends through techs and FOSS. I dare to dream, i dare to dream a country where a girl will prefer to be techie or web maker rather than being a garments worker. I know it’s a long way to go but not impossible though.

Womoz came to me as that platform which paved me the way to work for my dream. I won’t say more as the pictures have their own tongue :)

BeMGVTGCUAEEuuu.jpg largeDSC_6534IMG_8123

Now Let’s see how i’ve been doing that for a few months!!! :D

So how to get more women into tech?Mentor ship programs?? Sensitivity trainings ??or may be Ruby on Rails barbie?? NOPE!! I have a solution that can increase the number of women in techs consequently and truest me there’s no need of any conferences, or any kind of memberships!! Anyone can do it, especially women themselves ;) and we’ll allow them to get bolder and getting greater appreciation for what they do… resolution?? If you wanna be respected in techs as women then don’t call yourself a “GIRL”,If we start referring all the women in tech as women we’ll have a lot more women in techs getting rid of the girls. And when i say women i mean people who’ve Menstruated and pay taxes. If you do both you’re a women! It’s pretty simple, calling yourself a girl may be Cute and Fun but it’s hurtful to make an intact better working place and trust me i’m not alone who thinks like that!! ask any working women around you :) you’ll get your answers!! There are many people out there who are only steps away from self-emulation. It is time to take action which’s actually a pretty serious topic because words are incredibly powerful!! they reinforce and reflects suicidal power  structures.Words can be as powerful protest as actions can be! Cause at the end of the day it’s about power.When people refer to someone who’s an adult women as a girl it implies authority  part of the speaker. Girl is a diminutive.

Now let’s think about the word “BOY” for an adult man. Boys no toys, boys club….etc , It’s always said with more than a hint of condescension. Boys are immature,they are not to be trusted; you don’t want an organization filled with boys.. right? well, what about girls?? girls can’t drive,they can’t join the army , they can’t vote and girls probably shouldn’t!! but most important of all “GIRLS” aren’t threatening. And  appropriating the word girl for an adult women?? Just doesn’t make any sense at all, to me  at least. Because it’s not confronting sexism or inverting any power structures, it’s just using the word “girls” for someone who’s old and why do we have such a problem with being old? I am very happy to be out of College , as i’m pretty sure you all are to have the freedom. And i look forward the time when i’ll have enough wisdom to finish toughest challenges in just one setting!

Research shows that a lot of  women sabotage themselves in the workplace by starting sentences with things like “I may not be an expert”, they try not to appear to be kookie but what they are doing is they are undermining a threat to their own authority and they’re making people take them less seriously. It’s like a disclaimer!! calling yourself a girl in the workplace is the same thing , it diminishes you! And to some people it can be interpreted like an authority and slip revealing “i’m not totally sure i should be here”! So in your spare time… sure go out with your friends and family!! go  refer yourself  anything want to,but in the work place “geekgirls”?? NA-ah! Women Engineers aren’t some kind of mythical heroes for people to fantasize  about. The fact is: Being a women shouldn’t have to be sugarcoated. You’re women! Just like you’re a product manager or a coder or a social worker or anything !! Take charge of what you do and don’t apologize. You may not know everything and you may not experienced everything. But then again c’mmon which man had knowledge on everything? You’re a women and don’t apologize for it! You define the women that you are and if you’re uncomfortable calling yourself a women then ask yourself why?Because it’s about taking your work and yourself seriously. Just calling yourself a girl , does it say you’re here to take charge? kick ass and take names ? does it say you’re here to lead?  And for all the manly readers : you can help us out by calling us women! as There are not a lot of us in tech. And just because a women calls herself a girl in the workplace doesn’t mean that you can. She may not feel comfortable in the environment.

So… NO actually i don’t have a solution that’ll actually increase the number of females in tech instantly, My solution is to increase the number of women. I know it’s not the answer but it’s one small and important change that all of us can make to make tech a better place for tax paying menstruators among us! So i’ll leave you with this if Britny can figure out that she’s not a girl anymore, why can’t women in tech?

-Special Thanks to Caroline Drucker who made me think :)

==============

Before the above line she ended this supplement.

 

জিসক ২০১৪

পাঁচ কোটি লাইন ওপেন সোর্স কোড।

GSOC 2014 logo-blog

আবার চলে এলো জিসক। বেশ অনেকদিন পূর্বে ৮ই অক্টোবর ২০১৩ তেই জিসক ২০১৪ ঘোষণা করা হয়েছিলো। এবারে জিসক এর ১০ম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে বেশ কিছু নতুন ঘোষণা এসেছে,

    • বিগত বছরগুলোতে সর্বোচচ সংখ্যক ছাত্র যেসব দেশ থেকে অংশগ্রহন করা হয়েছে, জিসক কর্তৃপক্ষ সেই ১০টি দেশ ঘুরে প্রচারণা করবেন, এই প্রকল্প, স্থানীয় ছাত্র ও মেন্ট রদের।
    • ছাত্রদের প্রণোদনা বা stipend এর ১০ শতাংশ বৃদ্ধি করে ৫,৫০০ ডলার করা হয়েছে।

বিগত যেকোন বছরের চেয়ে ১০ শতাংশ অতিরিক্ত অংশগ্রহণকারী নেওয়া হবে। অর্থ্যাৎ প্রায় ১,৩০০ ছাত্র-ছাত্রী এবার সুযোগ পাবেন।

গুরুত্বপূর্ণ তারিখ:

  • ২৪শে ফেব্রুয়ারী: নির্বাচিত মেন্টরিং প্রতিষ্ঠানসমূহের তালিকা প্রকাশ

  • ১০ই মার্চ: ছাত্র-ছাত্রীদের অবেদন প্রক্রিয়া আরম্ভ

  • ২১শে মার্চ: আবেদন গ্রহন ডেডলাইন

অতীব গুরুত্বপূর্ণ: ২৪শে ফেব্রুয়ারীর পর থেকে ২৮শে ফেব্রুয়ারী পূর্ব পর্যন্ত ছাত্ররা পছন্দনীয় প্রতিষ্ঠানসমূহের সাথে যোগাযোগ করে, প্রকল্প আইডিয়া দিতে পারেন। আপনার আইডিয়া গৃহীত হলে, আপনি আবেদন প্রক্রিয়া আরম্ভ হওয়ার পর ওই প্রতিষ্ঠানে আবেদন করলে, নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশী। সংকোচ করবেন না, যোগাযোগ করুন। কথা বললে, কথা সেট হবে।

জিসক সম্পর্কে আরও:

  • আমার গত বছরের ব্লগটি পড়তে পারেন এখানে: http://wp.me/pOTMB-55
  • জিসক ২০১৪ সম্পর্কে পরবর্তী তথ্যসমূহ জানতে ও পূর্বের বছরের বাংলাদেশী জিসক অংশগ্রহনকারীদের নিকট হতে,  শিখতে চাইলে কিংবা প্রশ্ন করতে চাইলে – GSoC Bangladesh ফেসবুক গ্রুপে এখানে যোগ দিতে পারেন: https://www.facebook.com/groups/GSoCBD/
  • GSoC Bangladesh এর মেইলিং লিস্টে যোগ দিতে পারেন এখানে: https://groups.google.com/forum/?fromgroups#!forum/gsoc-bangladesh

মজিলা ইভেন্ট আয়োজন – উত্তরণ ১

টিকা: লেখাটি মাস দুয়েক পূর্বে আরম্ভ করেছিলাম। লক্ষ্য ছিলো, সম্পূর্ণ লিখে প্রকাশ করবো। কিন্তু অত্যাধিক বড় লেখা হয়ে যাচ্ছে এবং অনেকদিন সময় লাগছে। তাই, আংশিক প্রকাশ করলাম। পরবর্তীতে অন্যান্য অংশ লিখে প্রকাশ করবো।
 

পৃথিবীব্যাপী মজিলা কমিউনিটির স্বেচ্ছাসেবীরা (যাদের আমরা মজিলিয়ান বলে থাকি) প্রায়শই বিভিন্ন প্রকার ইভেন্ট আয়োজন করে থাকেন। মজিলিয়ানদের প্রতিভা, প্রাণশক্তি, নিয়মানুবর্তিতা, সহনশীলতা, নমনীয়তা, যোগাযোগের দক্ষতা, নিষ্ঠা, দূরদৃষ্টি (add more adjectives of individual expertise) মজিলাকে একটি ইনক্লুসিভ ও কোলাবোরেটিভ কমিউনিটি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। মজিলার বিভিন্ন ইভেন্টের প্লানিং ও আয়োজনে অংশগ্রহন করে, ব্যক্তিপর্যায়ে একজন নতুন মজিলিয়ান সময় ব্যবস্থাপনা, টিম বিল্ডিং, লিডারশিপ, রিসোর্স ব্যবস্থাপনা, এবং কমিউনিটি বিল্ডিং এর মত দক্ষতা তৈরী ও উন্নয়নে সম্ভাব্য সুযোগ পেয়ে থাকেন।

আমার অভিজ্ঞতা হতে, আমি একটি ইভেন লাইফ সাইকেল লিপিবদ্ধ করার চেষ্টা করছি। এখানে কিছু নিয়ম ও করণীয় পাওয়া যাবে। কিন্তু এগুলো নিতান্তই ডকুমেন্টেশন, একটি ইভেন্টের সফলতা নির্ভর করবে আপনার উপর এবং আপনার আয়োজনে মানের উপর। অভিজ্ঞতা বলতে, বেশ কিছু ছোট-বড় ইভেন্ট অংশগ্রহন এবং কিছু ইভেন্ট পরিকল্পনার অংশগ্রহন এবং সর্বোপরি কয়েকটি ইভেন্ট আয়োজনের অভিজ্ঞতার আলোকে আমি যতটুকু শিখতে পেরেছি, সেটি প্রকাশ করার চেষ্টা করছি।

ইভেন্ট প্লান তৈরী করা

কোন অনুষ্ঠান আয়োজনের, পরিকল্পনা প্রণয়ন আপনাকে সুশৃঙ্খল ও সহজ পথে একটি সফল আয়োজনের দিকে এগুতে সাহায্য করবে। অনেকেই বলে থাকেন, যেকোন কাজের পরিকল্পনা করা, মুল কাজের ৫০শতাংশ করে ফেলা।

বিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে, আমি বয় স্কাউট করতাম। বাংলাদেশ স্কাউটের বার্ষিক তাঁবু বাসে, বিভিন্ন প্রকার শিক্ষণীয় খেলায় অংশগ্রহন করতাম আমরা। প্রতিটি খেলার বিভিন্ন প্রকার বাঁধা থাকতো, যা উত্তরণ হিসেবে নামকরণ করা হয়েছিলো। আমার ওই নামকরণ অনেক পছন্দ হয়েছিলো। বিভিন্ন খেলা শেষে শিক্ষকগণ বলতেন, উত্তরন এক সফল হয়েছে, উত্তরণ দুই শেষ হল। তুমি উত্তরণ তিন পার করলে, এখন উত্তরন চারের পালা। সবগুলো বাঁধা অতিক্রম করতে না পারলেও, আমরা খুশি হতাম। কারণ, আমরা একটি না একটি উত্তরণ পার করে এসেছি, উত্তীর্ণ হয়েছি। অর্থ্যাৎ সবগুলো বাঁধা অতিক্রম করে সম্পূর্ণ খেলা শেষ না করতে পারলেও, ব্যর্থতার কোন ধারণাই আসত না মাথায়। বিষয়টা ছিল এমন যে, ছাত্ররা যতটুকুই পারবে, ততটুকু নিয়ে আলোচনা হবে, যা করতে পারলো না বা যতটুকু ব্যর্থ হল, সেটির কোন উল্লেখ বা আলোচনাই নেই। অনেকগুলো হতে, একটি বাঁধাও অতিক্রম করলেই উত্তীর্ণ। তাই আমি এখানে, অনুষ্ঠান আয়োজনের বিভিন্ন স্তরকে উত্তরণ হিসেবে চিহ্নিত করেছি। কারণ, একটি স্তর পার করতে পারলেই সফলতার একটি ধাপ ছোঁয়া হয়ে গেলো।

উত্তরণ ১: কমিউনিটি এসেসমেন্ট ও অর্গানাইজিং

মজিলার প্রায় সকল অনুষ্ঠান উন্মুক্ত হয়। উন্মুক্ত একটি অনুষ্ঠানের জন্যে কিছু বিষয় লক্ষনীয়, চিন্তনীয়, ধর্তব্য। তবে, শুধু আমন্ত্রন নির্ভর হলে, বিষয়গুলো খুব প্রয়োজনীয় নয়।

বর্তমানে চলমান কার্যক্রমসমূহ – নিশ্চিত হতে হবে, কোন কোন কাজ (activity) কিংবা প্রকল্প বর্তমানে কমিউনিটিতে চলছে, আর সেটি কমিউনিটির প্রয়োজন মেটাচ্ছে কিনা। আপনার কর্মপ্রচেষ্টা, বর্তমান কোন প্রচেষ্টার পুনরাবৃত্তি বা সাংঘর্ষিক হবে কিনা? ‌‌

এবং, আপনার পূর্বতন কোন activity কিংবা আয়োজন কোন অনুষ্ঠান, আপনার কমিউনিটির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে অগ্রগামী করেছে কিনা?

প্রয়োজনীয়তা – আদতে এধরনের অনুষ্ঠানের প্রয়োজন রয়েছে কিনা? যদি প্রয়োজনীয়তা থাকে, তাহলে কোন ধরনের অনুষ্ঠান কমিউনিটির জন্যে সর্বোৎকৃষ্ট সহায়ক হবে?

কমিউনিটির সাথে ব্রেইনস্টর্মিং করা

আপনার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে একাধিক অগ্রজ-অনুজ মজিলিয়ান এবং কমপক্ষে একজন কমিউনিটি লিডারের সাথে আলোচনা করুন। অনুষ্ঠান করার আইডিয়া মাথায় আসার পর হতেই এটি আরম্ভ করতে পারেন। আলোচনা করে দেখুন, তারা কোন প্রকারের কাজ(Activity)/অনুষ্ঠান করতে বলেন ও আপনাকে কি প্রকার সহায়তা প্রদান করতে পারবেন। আপনার আইডিয়া নকল হবার ভয় থাকলে, আইডিয়াটি টুইট করে ফেলুন #MozBDEventIdea হ্যাশট্যাগ এবং @MozillaBD যুক্ত করে। টুইট বার্তা, ফেসবুক স্টাটাসের মত, সম্পাদনা করা যায়না। অতএব, পূর্বের তারিখের আপনার একটি টুইট, গুরুত্বপূর্ণ রেফারেন্স হিসেবে কাজ করবে। আমি সদ্যজাত আইডিয়া ফেসবুক স্টাটাস আকারে দেওয়া নিরুৎসাহিত করবো। এতে হিতে বিপরীত হয়, তথাকথিত বিফেবু – বিজ্ঞফেসবুকিয়ানদের জন্যে।

মজিলা মিশন–  আমাদের এই মুভমেন্ট, আমাদের সকল কর্মকাণ্ড এবং অনুষ্ঠান আয়োজন অতি অবশ্যই, মজিলার মিশনের সমান্তরাল হতে হবে। প্রয়োজনে, এই উত্তরণে মজিলা মিশন বেশ কয়েকবার পড়ে নিতে হবে। হৃদয়ঙ্গম করতে অপারগ হলে, অগ্রজ মজিলিয়ানদের শরণাপন্ন হয়ে, ঝালিয়ে নিতে হবে।

অবশ্যই সচেতন হতে হবে যে, আপনি কি এমন কোন দৃষ্টিভঙ্গী উপস্থাপন করছেন, যা মজিলা পারসপেক্টিভে সঠিক নয় কিংবা কমিউনিটিতে অপ্রয়োজনীয়, অযাচিত হিসেবে দেখা হয়।

সম্পদ (Resources)– বাংলায় সম্পদ বলতে আমরা শুধু জমি-জমা ও টাকা পয়সাকে বুঝিয়ে থাকি। কিন্তু ইংরেজী resource শব্দটা যেসকল স্থানে ব্যবহৃত হতে দেখেছে, তা হতে আত্মস্থ করেছি এর আসল মানে। কোন একটি কর্ম করতে, যা যা প্রয়োজন, সবগুলোই ওই কাজের সম্পদ।

অনুষ্ঠান আয়োজনের এই উত্তরণে আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে, লিডার, মেম্বার ও ভলান্টিয়ার আপনার সাথে যারা আছেন, তাদের দক্ষতা কোন ক্ষেত্রে কতটুকু; খরচ কি পরিমান লাগতে পারে; খরচের সম্ভাব্য উৎস, অন্যান্য সম্পদ যেমন অনুষ্ঠানের জায়গা, আসবাব, যন্ত্রপাতি এবং প্রয়োজনীয় অন্যান্য সেবাসমূহ।

কতজন ব্যক্তি আপনাকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহায়তা করবেন, সেটি নিজের মনে গেঁথে নিন। যারা এগিয়ে এসেছেন, তারা আদতে আপনার অনুষ্ঠানের বিভিন্ন স্তরের নির্দিষ্ট কাজ করতে সমর্থ কিনা?

বিনামূল্যে কোন কিছু সহজলভ্য রয়েছে কিনা? তদন্ত করুন, বড় খরচ গুলো বিনামূল্যে বা সৌজন্যে পাওয়া যাবে কিনা। যেমন: ভেনু, খাবার, আসবাব, প্রজেক্টর, সাউন্ড, ইন্টারনেট ইত্যাদি।

কি পরিমান অর্থ সহায়তা মজিলা রেপস এর মাধ্যমে পাওয়া যেতে পারে। একজন রেপস এর সাথে আলোচনা করতে পারেন।

অন্য কোন সম্ভাব্য পৃষ্ঠপোষকতা পাওয়া যাবে কিনা?

খরচের খাত ও পরিমান যৌক্তিক কিনা? জনপ্রতি কত খরচ হবে?

কোনপ্রকার সেবার প্রয়োজন আছে কিনা? যেমন, কোন স্থান হতে কোন কিছু নিয়ে আসা, ভারি জিনিসপত্র নাড়াচড়া করা, বিকল্প বিদ্যুত সংযোগ ইত্যাদি। যা আপনি নিজে ও আপনার সহযোগীরা করতে অপারগ। মোট কথা পেশাদার কোন ব্যক্তির সহায়তা ও সংশ্লিষ্ট  খরচ নিশ্চিত হয়ে নিন।

উপরোক্ত তথ্যসমূহ অতীব জরুরী এবং গুরুত্বপূর্ণ।
সতর্কতা: লেখাটি আপডেট হতে পারে। বিভিন্ন পয়েন্ট নতুন সংযোজন ও পরিমার্জন করতে পারি, ভবিষ্যতে যেকোন সময়।

ভবিষ্যতের ইতিহাস

ইতিহাস, হঠাৎ হয়না; তবে হয়েই যায়। ইতিহাস অনুমান করা যায়না, তবে আঁচ করা যায়। আমার মত যারা মজিলা মিশনে বিশ্বাস করেন; তারা অবশ্যই আশা করি যে, “ফায়ারফক্স ওএস একদিন অনেকটা বাজার দখল করবে।” আর বাজার দখলের শতাংশে ভবিষ্যতে, আমার আলোচ্য বিষয়টি অনেক বড় এবং গুরুত্বপূর্ণ বলেই বিবেচিত হবে বলে আমি বিশ্বাস করি। আমি এক্সাইটেড না, আমি বুঝে শুনেই বলছি, বর্তমানে বাংলাদেশ হতে যতজন মজিলিয়ান, মজিলা মিশনে অবদান রাখছেন, তন্মধ্যে অন্যতম, অনিরুদ্ধ অধিকারী। তিনি আমাদের মধ্যে অন্যতম। তিনি আমাদের প্রাণের ভাষাকে ফায়ারফক্স ওএস এ স্থায়ী করতে প্রথম উদ্যোগ নেন  এবং এ পর্যন্ত সবচে বেশী কর্ম ঘন্টা ব্যয় করে আরও অনেক গুলো ভাষা সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে চলেছেন।

ফায়ারফক্স ওএস, মজিলা ফাউন্ডেশন কর্তৃক ডেভেলপড করা একটি মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম। বিস্তারিত পড়ুন আমার আরেকটি অনুবাদ-ব্লগে। মজিলার বেতনভুক্ত ডেভলপাররা রাতদিন পরিশ্রম করে চলেছেন, একটি মানসম্পন্ন মোবাইল ওসএ উন্নয়ন করতে। বেশকিছু ভাষা তার স্থাপন করেছেন ওএস টিতে, আরও ভাষা অন্তর্ভুক্ত করবেন নিকট ভবিষ্যতে। কিন্তু আমাদের অনিরুদ্ধ অপেক্ষা করেননি, ২০১৩ এর একুশে ফেব্রুয়ারীর দিন সাবমিট করে দিয়েছিলেন একটি বাগ(bug), অনেকটা বিদ্রোহীর মত। অনেক আলোচনা-সমালোচনার পর, অনেকদিন পর মজিলা বাগটি আমলে নিয়ে, অনিরুদ্ধ এর কথা মত ফায়ারফক্স ওএসের কোডে, বাংলা ভাষাকে স্থান করে দেয়।

ani'sbug

অনিরুদ্ধের সেই বাগ। ছবিতে ক্লিক করে bugizlla তে যাওয়া যাবে।

for techie – অনিরুদ্ধ ২১ শে ফেব্রুয়ারী, B2Gতে বাংলা ফন্ট রেন্ডার না হওয়ার সমস্যা জানিয়ে bugzilla তে, বাগ সাবমিট করেন সন্ধ্যা ৭টা ১১ মিনিটে। সেটির সমাধানকল্পে, ৭টা ৪৫মিনিটে বাংলা ফন্টের জন্যে পুল রিকোয়েস্ট করেন। পরের দিন, patch তৈরী করে সংযুক্ত করে দেন বাগে। ১৫ই অক্টোবর পুল রিকোয়েস্ট মার্জ করে মজিলা আর বাগটি resolve করে fix করে দেয়।

আর আমরা পাই, ফায়ারফক্স ওএস এ বাংলা দেখার সৌভাগ্য।

DSC_1036

গিকস্ ফোনের তৈরী পিক মডেলের ফোনে, ফায়ারফক্স ওএস এ বাংলা।

মজার বিষয় হল, অনি বাংলা হরফ ব্যবহার করে, এমন সকল ভাষারই উপকার করেছে।

(লেখাটি আংশিক, এ সপ্তাহে হরতালে আরও কিছু লিখবো এটিতে। শেষ করে অনিকে উৎসর্গ করবো। Tribute এর মত।)